আপডেট
০৬-১১-২০১৮, ০৬:০১
ভোটের হাওয়া

ময়মনসিংহে আ. লীগে অন্তর্কোন্দল, ধীরে চলছে বিএনপি

untitled-8
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সম্ভাব্য প্রার্থীদের পদচারণায় মুখর হয়ে উঠেছে ময়মনসিংহ জেলার ১১টি আসন। দলীয় মনোনয়নের আশায় প্রতিটি আসনেই একাধিক প্রার্থী মাঠে নেমেছেন। এক্ষেত্রে আওয়ামী লীগ এগিয়ে থাকলেও বিএনপি অনেকটা নীরব। বিএনপি নেতারা বলছেন, তাদের আন্দোলন ও নির্বাচনের প্রস্তুতি চলছে একসাথে। এদিকে জোটবদ্ধ নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগের কাছে আরো বেশি আসন দাবি করবে জাতীয় পার্টি। আর জাসদ চাইবে দুটি আসন।

আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঘিরে ইতিমধ্যেই সরগরম হয়ে উঠেছে ময়মনসিংহের রাজনীতি। গত নির্বচনে সাতটিতে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ও চারটিতে জাতীয় পার্টির প্রার্থী জয়ী হন। এবার প্রতিটি দলেরই একাধিক মনোনয়ন প্রত্যাশী মাঠে কাজ করছে। তবে দলীয় কোন্দলের কারণে বেকায়দায় রয়েছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। সম্প্রতি যুবলীগ নেতা আজাদ হত্যাকাণ্ড এবং এতে মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদককে প্রধান আসামী করে মামলা করায় মুখোমুখি অবস্থানে জেলা এবং মহানগর আওয়ামী লীগ। এছাড়াও প্রতিটি আসনেই রয়েছে দলে দ্বিধা বিভক্তি। তবে নেতারা বলছেন, প্রার্থিতা নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা থাকলেও দলে কোন বিরোধ নেই।

মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এহতেশামুল আলম বলেন, 'উন্নয়নের ধারাবাহিকতার কারণে এগারোটি আসেনই যদি আমাদের মনোনয়ন দেয়া হয় সবগুলোতেই আওয়ামী লীগের জয়লাভের সম্ভাবনা আছে।'

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল হবেন, 'দেশের প্রয়োজনে ঐক্যবদ্ধভাবে যে সিটে যাকেই নমিনেশন দেবে তার পিছনেই কাজ করতে আমরা প্রস্তুত।'

এদিকে বিএনপির তৎপরতা তেমন চোখে না পড়লেও সম্ভাব্য প্রার্থীরা এলাকায় কাজ করছেন। নেতারা বলছেন, তাদের আন্দোলন ও নির্বাচনের প্রস্তুতি চলছে একসাথে।

জেলা দক্ষিণ বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবু ওয়াহাব আকন্দ বলেন, 'এই সরকারের অপকর্মের ফলেই বিএনপিতে ভোট পড়বে এবং গণমানুষের বিজয় হবে।'


জেলা উত্তর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোতাহার হোসেন তালুকদার বলেন, 'আমাদের নেত্রীর মুক্তি, সহায়ক সরকার এবং নির্বাচনের প্রস্তুতি, এর জন্য আমাদের যে সিদ্ধান্ত নেয়া দরকার সেটা আমাদের কেন্দ্র থেকে নিবে এবং আমরা সেটা বাস্তবায়ন করবো।'

বর্তমানের চারটি আসনে সংসদ সদস্য থাকলেও জোটবদ্ধভাবে নির্বাচনে গেলে আরো বেশি আসন দাবি করবে জাতীয় পার্টি। এদিকে অন্তত দু'টি আসনে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে জাসদ।

জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফখরুল ইমাম বলেন, 'আমাদের  যদি ওইরকম সুযোগ থাকে, যদি অ্যালায়েন্স হয় তাহলে বর্তমানে চারটি আছে আমরা অন্তত অর্ধেক চাইবো।'

মহানগর জাসদের সভাপতি মো. শফিকুল ইসলাম মিন্টু বলেন, 'এবার জিততে হলে ফুলবাড়িয়ার আসন আমাদের দিতে হবে। আমরা দুইটা আসনেই শক্তিশালী।'

জেলায় মোট ভোটার ৩৭ লাখ ৫০ হাজার ৯৬৭ জন। এরমধ্যে নারী ভোটার ১৮ লাখ ৫৭ হাজার ৩১৯ জন।




DMCA.com Protection Status

এই বিভাগের সকল সংবাদ

Contact Address

Nasir Trade Centre, Level-9,
89, Bir Uttam CR Dutta Road, Dhaka 1205, Bangladesh
Email: somoydigitalsomoynews.tv

Find us on

  Live TV DMCA.com Protection Status
উপরে